আপনি প্রস্তুত তো???

"ফজরের নামাজে একদম উঠতে পারিনা, কী যে করি! আল্লাহ নিশ্চয়ই মাফ করবেন, তিনি তো ক্ষমাশীল।

আপনি যদি এমনটি ভেবে থাকেন, তবে একটু কষ্ট করে প্রশ্নগুলো মিলিয়ে দেখুন: আপনার অফিস যদি সকাল ছ'টা/ সাতটায় হয়, এ পর্যন্ত কয়দিন ঘুমের কারণে অফিসে যেতে দেরি করেছেন? আপনি যদি স্কুল, কলেজ কিংবা ভার্সিটির স্টুডেন্ট হয়ে থাকেন; তবে সকালবেলায় হয়েছে, এমন কয়টি পরীক্ষা জীবনে ঘুমের কারণে মিস করেছেন? আপনি যদি বাস/ট্রেন/প্লেনে সফর করে থাকেন দূরপথে, জীবনে কতবার টিকেট কেটেও ঘুমের কারণে সকালের বাস/ট্রেন/ফ্লাইট মিস করেছেন?

আপনার যদি এমন কোন অসুখ হয়ে থাকে, যার জন্য ডাক্তার দেখাতে কিংবা টেস্ট করাতে ভোরবেলা লাইন দিতে হয়েছে, ঘুমের কারণে মিস করেছেন, এমন কতবার হয়েছে? .. .. .. প্রশ্নগুলোর কোনটির উত্তর যদি এমন হয়, যে আপনি অনেকবার করেছেন, তাহলে আপনার দাবি সত্য। যদি বিপরীত হয়ে থাকে, তবে আপনি ফজরের নামাজে ওঠার জন্য চেষ্টা করেও পারেননা, এই দাবি মিথ্যে, চূড়ান্ত মিথ্যে। এবার আরেকটি প্রশ্ন মিলিয়ে নিশ্চিত হউন: একটা পরীক্ষা, অফিস, ফ্লাইট, মিস করার জন্য আপনার মন কতখানি খারাপ হয়েছে? সারাদিন কতবার মনে পড়েছে ঘটিনাটি? কতবার আফসোস করেছেন? কতখানি সতর্কতা অবলম্বন করেছেন, যে জীবনে আর এমন ভুল দ্বিতীয়বার করবেন না? পরের বার কতজনকে বলে রেখেছেন ডেকে দেয়ার জন্য? মোবাইলে কয়টি এলার্ম দিয়েছেন সতর্কতা হিসেবে? .. .. ..
এবার ভেবে দেখুন, এক ওয়াক্ত ফজরের নামাজ মিস গেলে আপনার কতটুকু খারাপ লেগেছে? দিনে কতবার মনে পড়েছে? কতবার আফসোস করেছেন? পরের দিনের জন্য কতখানি সতর্কতা অবলম্বন করেছেন? কয়টি এলার্ম দিয়েছেন? কয়জন নামাজীকে বলে রেখেছেন ডেকে দেয়ার জন্য?? .. .. ..
 দুই গ্রুপের উত্তরে যদি আকাশ পাতাল ফারাক হয়, তবে তার মানে এটাই দাঁড়ায় যে: "আপনি ফজরের নামাজকে এখনো আপনার অফিস, পরীক্ষা, ফ্লাইট, কিংবা চিকিৎসার সমান গুরুত্ব দিতে পারেননি(অথচ হাদীসে এসেছে, ফজরের শুধু দুই রাকাত সুন্নাত নামাজের মূল্যই গোটা দুনিয়া আর এর মধ্যে যা কিছু আছে সমস্ত কিছুর চেয়ে বেশি, সেখানে ফরযের মূল্য কতখানি?) ; আপনি অফিসের বস, শিক্ষক, যতখানি ভয় পান কিংবা ভালোবাসেন, আপনার সৃষ্টিকর্তা, রিযিকদাতা, জীবনদাতা, মৃত্যুদাতা, মহান আল্লাহ রাব্বুল 'আলামীনকে ততখানি ভয় পেতে কিংবা ভালোবাসতে এখনো পারেননি।
 তাহলে প্রস্তুত থাকুন, ওয়াল্লাহি, আপনাকে আল্লাহর সম্মুখে অবশ্যই দণ্ডায়মান হতে হবে, আপনার প্রতিটি মিথ্যে অজুহাতের চুলচেরা বিশ্লেষন রাজাধিরাজের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে আপনাকেই করতে হবে। আপনি যদি দুনিয়াবি একটা এক্স্যামের জন্য দিনের পর দিন মাঝরাত্রি পর্যন্ত জেগে পড়েন আর ফজরের সময় ঘুমিয়ে থাকেন, অফিসের বসের ভয়ে ঠিক ঠিক অফিসে পৌঁছেন, কেবল নামাজের খাতায়ই এবসেন্ট মার্ক পড়তে থাকে, তবে কেবল শ্বাসটুকু বন্ধ হওয়ার জন্য অপেক্ষায় থাকুন, কাঠগড়ায় আপনাকে দাড়াতেই হবে। .. .. ..
আপনি প্রস্তুত তো??? আল্লাহ আমাকে সহ সকলকে বুঝার তওফিক দান করুন,আমিন।

আপনিই বোকা।

আল্লহ তায়ালা মানুষ কে খুব সুন্দর বিবেক বুদ্ধি দিয়েছেন,যা আর কাউকে দেয়া হয়নি,এজন্যই আমরা "আশরাফুল মাখলুকাত"।
এই শ্রেষ্ঠত্ব দোজাহানের মালিক আমাদের দিয়েছেন,তিনি নিজেই দিয়েছেন এই সম্মান আমাদের।কিন্তু আমরা কি তার মর্যাদা বুঝি??
আল্লাহর বেলায় তা আমাদের বুঝার দরকার নেই কিন্তু নিজের বেলা আমরা ষোল আনাই চাই,নাহয় সব দোষ আল্লাহর,কিন্তু আল্লাহ কি আপনার দোষ দেয় কোন দিন?
যেখানে যেতে আল্লাহ আপনাকে মানা করেছে,যা আপনার জন্য হারাম করেছে,সেখান থেকে আপনার কোন ক্ষতি হলে আল্লাহ কি আপনার দোষ দেয় নাকি যে আমি যেতে মানা করলাম গেলে কেন?এখন বুঝ মজা কেমন!ব্যাপার টা কিন্তু এই হওয়া উচিত ছিল,টিট ফর ট্যাট।কারন আপনার জীবনে কিছু হলেই আপনি তার উপর ব্লেইম করেন যেন আপনাকে সৃষ্টি করে বড় দোষ করেছে,এখন আপনি তার কথা শুনেন না শুনেন, কিছু হলে তার দোষ।কেন ভাই? এত সেলফিশ কেন আপনি?আপনার সন্তান অবাধ্য হলে বুক ফেটে যায়,আপনি যে আপনার স্রষ্টার অবাধ্য,তার কেমন লাগে?

দুনিয়ায় কত চাহিদা আপনার।অমুক কে হেলপ করেছেন,সে আপনার ক্ষতি করছে,আপনার নামে গীবত করছে,তখন আপনি রেগে আগুন হয়ে বলেন যে,উপকারই করা উচিত না,উপকার করলেই কষ্ট পেতে হয়।কেমন লাগে তখন??আপনি যার উপকার করলেন তার উপর কিন্তু আপনার অধিকার নাই কোন,তাকে আপনার বাধ্য হতে হবে এমন কোন কথা নেই,আপনার ইচ্ছা হইছে উপকার করেছেন,এখন তার ইচ্ছা সে স্বীকার করবেনা।এর জন্য আপনি তাকে শাস্তি ও দিতে পারবেন না।

এবার নিজের দিকে তাকান ভাল করে,আপনি কি আল্লাহর বাধ্য???সে তো আপনাকে সবই দিয়েছেন,কি দেয়নি তাকিয়ে দেখুন।
গ্লাসের কতটুকু খালি তা না দেখে কতটুকু ভরা সেটা দেখুন ভাই।
আপনি সব মেগা প্যাকেজে পেয়ে দুনিয়ায় খাচ্ছেন দাচ্ছেন আরাম করছেন,আবার আযান দিলেও আপনার বিকার নাই,স্বামীর অবাধ্য স্ত্রী আপনি,রোযা রেখেও ঘুষ ছাড়েন না আপনি,বেপর্দা হয়ে নেচে বেড়াচ্ছেন দুনিয়া জুড়ে।
এর জন্য কি শাস্তি আপনি পেয়ে থাকেন ডেইলি বেসিসে?
 কিচ্ছু পান না,তারপর ও সামান্য বিপদ এলেই আপনার হতাশা এসে মনে জড় হয় আর বলতে থাকেন যে,আমার জীবনে কেন এমন হয়?কি দোষ আমার?
দোষ নাই আপনার কিন্তু যে কাজের জন্য আপনাকে আল্লাহ পাঠাল সে খোজ নাই আপনার।ভাবুন,ভাল করেই ভাবুন,উত্তর নিজের কাছেই পাবেন,অন্যকে অকৃতজ্ঞ বলে পার পাবেন না,নিজের স্রষ্টার প্রতি কৃতজ্ঞতা আপনার ঝুলিতে কত খানি জমা আছে হাতড়ে দেখুন একবার,তখন আর কষ্ট পাবেন না এই ভেবে যে আমি কত্ত বোকা,খালি মানুষের জন্য করি,কেউ আমার জন্য করেনা কিছু।একথা বললে আপনার আল্লাহ কেই পৃথিবীর বড় বোকা ভেবে বসে আছেন আপনি,অথচ আপনিই বোকা।


>> কালেক্টেড পোস্ট <<

এই পৃথিবী স্রেফ একটা স্বপ্ন। অতি ছোট্ট স্বপ্ন।

বিছানায় পড়ে আছি। পাশে বসে আছে আমার ছেলেমেয়েরা, ভাইবোনেরা সবাই। অদূরে দাঁড়িয়ে আমার কাছের বন্ধুরা। হঠাৎ লম্বা লম্বা দম নিতে শুরু করলাম। সূরা ইয়াসীন পড়তে শুরু করেছে কেউ একজন। তার সাথে পড়া শুরু করল অন্যান্যরা। দম ফুরিয়ে যাচ্ছে ধীরে ধীরে। চোখ খুলে দেখি: শিয়রে দাঁড়িয়ে মৃত্যুর দূত। অনন্তের পথে যাত্রা শুরু হতে অল্প কিছু ক্ষণের অপেক্ষা। আমার মুখ খুলে গেছে, কেউ একজন "যাম যাম"-এর পানি ঢেলে দিচ্ছে। এই ক্ষণের জন্যই রেখে দিয়েছিলাম পানিটা। "লা ইলাহা ইল্লা আল্লাহ্"। চোখের দৃষ্টি হারিয়ে গেছে। কথা বলার শক্তিও নেই আর। অনুভূতিগুলোও নিস্তেজ হয়ে গেছে। কানে আসছে শুধু চারপাশের কান্নার আওয়াজ।
আমি মৃতপ্রায়। প্রবল ঝাঁকুনির সাথে মৃত্যুদূত আমার আত্মা বের করে আনল। এই দুনিয়া ছেড়ে বিদায় নিয়েছি আমি।....
.
আমার গাড়ি, বাড়ি, ব্যাংক ব্যালেন্স, সম্পর্ক কোনোকিছুর আর বিন্দুমাত্র মূল্য নেই এখন। কবর আমার বাসস্থান; আমার পরিচয়: আমি 'মৃত'। আত্মীয়স্বজনেরা আমাকে কবর দেওয়ার ব্যবস্থা করছে। কেউ কেউ বলছে, আমাকে এতক্ষণ ঘরে রাখাটা ঠিক হচ্ছে না। যে বাড়ি আমি নিজে বানালাম, যে ঘরে আমি নিজে ঘুমালাম, সেই ঘরে আজ আমার ঠাঁই নেই। দামি দামি যেসব বাথরুম ফিটিংস দিয়ে আমার বাথরুম সাজালাম, সেই বাথরুমে আমার শেষ গোসল হলো না। আমাকে গোসল হয়েছে মাইয়্যেতের গোসলখানায়। সাদা কাফনে পেঁচিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে কবরের দিকে। আমার দামি গাড়িটাও আজ আর আমার নয়। কেন?
কেন এত অর্থহীন সম্পদ জমা করেছিলাম! কেন এই সম্পদ অর্জনের জন্য মিথ্যে বলেছিলাম? দুর্নীতি করেছিলাম? সারাদিন খেটে মরেছিলাম! এই সম্পদ? এর কানাকড়িও সঙ্গী হলো না আজ। পুরো জীবনটা বেগার নষ্ট করেছি আমি। ধ্বিক্ আমার প্রতি! ভুলে গিয়েছিলাম মৃত্যু আসবেই। তাই এত পাপে জড়িয়ে ছিলাম। আফসোস!
.
কল্পনা বন্ধ করুন। আপনার আর আমার সাথে একদিন এমনটাই হবে। কাজেই তৈরি থাকুন। ভালো কাজগুলোই আপনার পরকালের যাত্রাকে সুন্দর ও শান্তিময় করবে। তাই মৃত্যুকে স্মরণ করুন। এটা আসবেই। আজ অথবা কাল। এই পৃথিবী স্রেফ একটা স্বপ্ন। অতি ছোট্ট স্বপ্ন।
.
Collected From
Shaykh Zahir Mahmood